Press "Enter" to skip to content

পূর্বধলার দর্পনের বয়স আজ ৬ পেরিয়ে ৭ বছরে !!

পূর্বধলার দর্পন। পূর্বধলা উপজেলার সংবাদমাধ্যম। দর্পন অর্থ আয়না, আরশি, মুকুর, স্বচ্ছ কাচের ফলকবিশেষ। আপাত: দৃষ্টিতে দর্পণ হলো এমন এক প্রতিফলকপৃষ্ঠ যেখানে আমরা কোন পরিবর্তন ছাড়া আমাদের রূপ তথা বিম্ব অবিকল একই রকম দেখতে পারি। পূর্বধলা উপজেলার সামাজিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, খেলাধুলা, সাধারন জনগনের ভাবনা সহজ করে সকলের সামনে উপস্থাপন করবে এই ভাবনা থেকেই সংবাদ মাধ্যমটির নামকরণ করা হয়েছে পূর্বধলার দর্পন বা পূর্বধলার আয়না বা পূর্বধলার প্রতিবিম্ব। স্যাটেলাইন টিভি চ্যানেল ও খবরের কাগজের বহুল প্রচলনের পূর্বে ২০০৪/০৫ সালেও পূর্বধলার কোন খবর সংবাদ মাধ্যমে আসা ছিল অনেক সাফল্য। টেলিভিশনে পূর্বধলার সংবাদ দেখাবে তা তো ভাবাই যায়না! সেসময় পূর্বধলার সঠিক খবরগুলো সাধারন মানুষের কাছে সহজে উপস্থাপন করার একটি স্বপ্ন লালন করতাম। ইচ্ছা থাকা সত্তে¡ও সঠিক দিক নির্দেশনার অভাবে এগোতে পারছিলাম না। বর্তমান সময়ে গুগল সার্চ বক্সে পাওয়া যায়না এমন তথ্য খুবই সামান্য বিপরীতে তখনকার সময়ে গুগল সার্চ বক্সেও তথ্য পাওয়া যেত খুবই সামান্য। আমার কম্পিউটার ও ইন্টারনেট সর্ম্পকে সামান্য ধারণা থাকার কারণে পরিচয় হয় সংবাদ মাধ্যমে কাজ করা বড় ভাইদের সাথে। যারা বিভিন্ন সংবাদপত্র অফিসে খবর ই-মেইল করতে আসতেন। আমি তাদের সাথে আমার লালিত স্বপ্ন প্রকাশ করি। কিন্তু তখনকার সময়ে ওয়েব পোর্টাল তৈরী করাও সহজলভ্য ছিলনা।

কোন ভাবে ম্যানেজ হলো একটি ডোমেন ও হোস্টিং সালটা ২০১৪ সালের ১৬ মে। পূর্বধলা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজিত প্রযুক্তি মেলায় বর্তমান তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার, স্থানীয় সংসদ সদস্য ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল (বীরপ্রতিক) ও সেই সময়ে কর্মরত উপজেলা নির্বাহী অফিসার হেলাল উদ্দিনের শুভেচ্ছা বার্তার মাধ্যমে পূর্বধলা ডট কমের প্রকাশনায় পূর্বধলা দর্পনের যাত্রা শুরু করে। যুগান্তর পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি নূর আহাম্মদ খান রতন (সহকারী শিক্ষক, পূর্বধলা জগৎমণি সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়)-এর দেয়া পূর্বধলার পর্দন পত্রিকার  স্লোগান হয় “সবার সাথে সবসময়”। এই যাত্রা পথে সঙ্গী ছিলেন পূর্বধলা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শফিকুল আলম শাহীন ভাই। আমাদের যাত্রা বেশ উৎসাহ ও উদ্দিপনা এবং বড় ভাই ছোট ভাইয়ের সংমিশ্রণে নিউজ পোর্টালটি উপজেলার সাধারন জনগনের মধ্যে ইতিবাচক প্রভাব ফেলে।

আমরা অনলাইন সংস্করণের পাশাপাশি ছাপা সংস্করণ রূপ দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি। শফিকুল আলম শাহীন সম্পাদক, শফিকুজ্জামান শফিক নির্বাহী সম্পাদক ও আমি বার্তা সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণ করি। ২০১৫ সালের ২৬ মার্চ পত্রিকার ছাপা সংস্করণ ১ম সংখ্যা প্রকাশ করি।

২০১৬ সালের দিকে যাত্রা পথে পত্রিকায় আমার অভিবাকদ্বয়ের বিয়োগান্ত ঘটে। শফিকুল আলম শাহীন পূর্বকন্ঠ ডট কমের প্রকাশক ও সম্পাদক হিসাবে এবং শফিকুজ্জামান শফিক ইকরা প্রতিদিনের প্রকাশক ও সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহণ করে নিজেদের প্রকাশনায় ব্যস্থ হয়ে পড়েন। তখনকার উপজেলার রাজনৈতিক পরিবেশটাও ছিল ঘুলাটে।

পুরো একা হয়ে পড়ি। সাময়িক স্থবিরতায় পাশে দাঁড়ান বড় ভাই জুলফিকার আলী শাহীন ও বন্ধু মোহাম্মদ আলী জুয়েল (প্রভাষক, পূর্বধলা সরকারি কলেজ)। তাদের সহযোগিতা ও অনুপ্রেরণায় আবারও নতুন উদ্দ্যোমে পথ চলা শুরু হয়। এ পথচলায় পাশে পেয়েছি আলী আহাম্মদ খান আইয়োব (লেখক ও গবেষক), ইসমাঈল হোসেন খোকন (নয়া দিগন্ত), নূর আহাম্মদ খান রতন (যুগান্তর), সৈয়দ আরিফুজ্জামান(আজকের আরবান), গোলাম মোস্তফা(কালের কন্ঠ), ও ছোট ভাই সাদ্দাম হোসেন (দৈনিক আমাদের কথা)সহ অনেকের। পাশে পেয়েছি সংবাদ মাধ্যমে জড়িত নন এমন অনেক শুভাকাঙ্খী, পত্রিকার পাঠক, বিজ্ঞাপনদাতা, কলাকৌশলী সহযোগীদের।

একটি সংবাদ মাধ্যম কোন প্রকার আয় ছাড়া চালিয়ে নেয়া কতটুকু কঠিন যারা এ মাধ্যমে জড়িত তারাই উপলব্ধি করতে পারবেন।

আমার স্বপ্ন অনুযায়ী এই সংবাদ মাধ্যমটি ২০১৪ সাল থেকে এখনও অবদি শুধুমাত্র পূর্বধলা উপজেলার সংবাদ সংগ্রহ করে প্রচার করে আসছি। দেশ ও দেশের বাইরে যারা অবস্থান করছেন তারা খুব সহজেই এক পলকে পূর্বধলার খবরগুলো পড়তে পারছেন। এজন্য তারা আমাদের অনুপ্রেরণা যোগাচ্ছেন, তাদের প্রতিও আমি কৃতজ্ঞতা জানাই। আমার ভাবনা ও নিজের কর্মক্ষমতা অনুযায়ী আমি যতদূর পারব ততটুকুই করব। জাতীয় করে অন্য সব উপজেলার সংবাদ সংগ্রহ, সাংবাদ কর্মী নিয়োগ, সচ্চতা যাচাইসহ নানাবিদ কাজ আমার একার পক্ষে করা সম্ভব হবে না। যে স্বপ্নে পত্রিকাটি তৈরি করা হয়েছে সেই স্বপ্ন পূরণে প্রতিবন্ধকতা দেখা দিতে পারে। ২০১৬ সালে সরকার কর্তৃক নিবন্ধন আবেদন দেয়ার সময় আবেদন করি, সরকারী নীতিমালায় যদি স্থানীয় হিসাবে না রাখা যায় তবে চিন্তা ও কাজে ভিন্নতা আনতে হবে।

বৈশ্বিক মহামারীর এই সময়ে কোন প্রকার অনুস্টান করা সম্ভব হচ্ছে না, সকলে সচেতন হই যেন এই মহামারী থেকে আমরা রক্ষা পায়।

৬ বছর পুর্তি ও ৭ম বছরে পর্দাপনের এই শুভক্ষণে পূর্বধলার দর্পন পত্রিকার পাঠক, বিজ্ঞাপনদাতা ও শুভানুধ্যায়ীদের জানাচ্ছি বর্ষপূর্তির শুভেচ্ছা।

কেবিএম নোমান শাহরিয়ার
প্রকাশক ও সম্পাদক, পূর্বধলার দর্পন।
যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, পূর্বধলা প্রেসক্লাব।

More from লাইফস্টাইলMore posts in লাইফস্টাইল »

Be Fir to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *