Press "Enter" to skip to content

অবশেষে হুইল চেয়ার পেলেন প্রতিবন্ধী কুদ্দুস

নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার খলিশাউড় ইউনিয়নের পাবই গ্রামের আব্দুল কুদ্দুস (৪৭) এর কপালে অবশেষে একটি হুইল চেয়ার জুটেছে। হুইল চেয়ার চেয়ে পূর্বধলা হেল্পলাইন ফেইজবুক গ্রুপে একটি পোস্ট করা হয়। পোস্টটি দেখে স্থানীয় আরেক সেচ্ছাসেবী সংগঠন আলী রওশন ফাউন্ডেশন কর্তৃপক্ষ এগিয়ে আসে। অবশেষে আজ শুক্রবার বিকেলে আলী রওশন ফাউন্ডেশন ও পূর্বধলা হেল্পলাইনের কর্মীরা কুদ্দুসের বাড়িতে গিয়ে হুইল চেয়ারটি হস্তান্তর করে।
দীর্ঘদিন থেকে একটি হুইল চেয়ারের জন্য চলাফেরায় কষ্ট করছিলেন আব্দুল কুদ্দুস। পরিবারের সদস্যরাও অনেক সময় তার প্রতি রাগ দেখাত। প্রয়োজনে অনেক সময় কাউকে কাছে পেতেননা তিনি।
জানা গেছে, উপজেলার পাবই গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে আব্দুল কুদ্দুস ১৯৯৮খ্রি. টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হয়ে চলার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেন। তার দুটি পা অচল হয়ে পড়ে। চলাচল করতে খুবই কষ্ট করতে হয়। তিন কন্যা ও স্ত্রী নিয়ে তার পরিবার। বাড়ি ঘরের জায়গা ছাড়া ফসলি জমিও নেই তেমন। সংসারের হাল ধরতে তিনি একটি দোকান পরিচালনা করেন। দোকানে মালামাল কম থাকায় আয়ও কম হয়। নুন আনতে পানতা পুরোয় অবস্থা। অভাবের কারণে হুইল চেয়ারের কথা ভাবতেই ভুলে গেছেন।
একটি হুইল চেয়ার প্রয়োজন এই মর্মে পূর্বধলা হেল্পলাইন গ্রুপে একটি খবর প্রকাশিত হয়। এই খবর প্রকাশের সাথেসাথে এলাকাসহ দেশের বিভিন্ন ব্যক্তির নজরে আসে।
এ প্রসঙ্গে আলী রওশন ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধি জাকির আহম্মেদ খান জানান, শারীরিক প্রতিবন্ধী আব্দুল কুদ্দুসের একটি হুইল চেয়ার প্রয়োজন ছিল। আমরা এর ব্যবস্থা করেছি। তার বসবাসের জন্য একটি ঘর প্রয়োজন। এজন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেন।
পূর্বধলা হেল্পলাইনের মর্ডারেটর নাহিদুল আলম ও আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, আমরা সমাজের দুস্থ, অসহায় ও সুবিধাবঞ্চিতদের পোস্টগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রচার করি। তেমনি একটি পোস্ট ছিল আব্দুল কুদ্দুছের পোস্টটি। আমরা ধন্যবাদ জানাই আলী রওশন ফাউন্ডেশনকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসায়। সেই সাথে সমাজের সুবিধা বঞ্চিতদের চিহ্নিত করে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন।
এদিকে হুইল চেয়ার পেয়ে আনন্দ আর খুশিতে বারবার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছিলেন আব্দুল কুদ্দুস। তার স্ফিত হাসি মুহুর্তে ছড়িয়ে গেল উপস্থিত সকলের মধ্যে।

Be Fir to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *